অন্যান্য / সিকিউরিটি

জেনে নেই ইন্টারনেট কুকি সম্পর্কে কিছু তথ্য

internet cookies Projuktir Avijatri internet cookies definition what are cookies in browser Types of Internet cookies authentication cookies tracking cookie session cookie persistent cookie ইন্টারনেট কুকিজ কুকিজ এর ব্যাবহার ব্রাউজার কুকি কি? কুকির সীমাবদ্ধতা বিভিন্ন প্রকার কুকি এই প্রকাশনাটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

Cookies শব্দের অর্থ হচ্ছে বিস্কুট। তবে আজ যে cookie (কুকি) নিয়ে আলোচনা করব তা মোটেও কোন বিস্কুট জাতীয় Cookie নয়। এটা হল ইন্টারনেট কুকি। ওয়েব কুকি ব্রাউজার কুকি ছাড়াও বিভিন্ন ধরণের কুকি রয়েছে। তাহলে আমাদের মনে খুব সহজেই একটি প্রশ্ন আসতে পারে- কুকির সাথে ওয়েব তথা ইন্টারনেটের সম্পর্ক কিভাবে হলো?

এটি জানতে হলে, কুকি সম্পর্কে প্রচলিত একটা গল্প জানা প্রয়োজন।
অনেকের ধারনা অনুযায়ী গল্পটা এরকম যে ইন্টারনেট কুকি”-এর নামটি এসেছে হেসেল এবং গ্রেটেল নামের দুই ছেলের কাহিনী থেকে। একদিন তারা একটি বনের মধ্যে ঢুকে পড়ল। তারা বনের ভিতরে ঢুকতেছিল ও একটি একটি করে cookie crumbs” (বিস্কুট) ফেলে যাচ্ছিল যাতে পরবর্তিতে গভীর বনের ভিতর থেকে সহজেই বের হতে পারে কোনরকম সমস্যা ছাড়া। মুলত এই ধারনা থেকেই ইন্টারনেট কুকির নামকরণ করা হয় । 
উপরের গল্পটির সাথে আমাদের বাস্তব জীবনে ঘটে যাওয়া একটি উদাহরণের মাধ্যমে ইন্টারনেট কুকি বোঝার চেষ্টা করা যাক ধরেন আপনি কোন নির্দিষ্ট ব্রাউজার থেকে ফেসবুকে লগইন করেছেন এবং লগইন করা অবস্থায় ব্রাউজার থেকে বের হলেন এরপরে আপনি আবার একই ব্রাউজারে ফেসবুকে পুনরায় ব্রাউজ করতে গেলে আপনাকে আর লগইন করতে হয় না। কি? কিছু বুঝলেন না তো ! কোন সমস্যা নেই বিষয়টিকে আমরা আরও পরিষ্কার ভাবে ব‌োঝানোর চেষ্টা করছি।
 
এখানে আপনার ব্রাউজার কুকি যে কাজটি করে সেটা হলো- প্রথমবার যখন ব্রাউজার একটি ওয়েবসাইট ব্রাউজ করে তখন কিছু ডাটা সেইভ করে ফাইল আকারে তৈরী করে (এখানে বিভিন্ন ধরণের তথ্য হতে পারে যেমন, ইউজারনেম,ভিজিট করা পেজ ও অন্যন্য তথ্য) এই ডেটাগুলোই মূলত কুকি যা আপনার ব্রাউজারে সংরক্ষিত থাকে। পূনরায় যখন একই ওয়েবসাইটে ব্রাউজ করা হয় তখন আগের সেইভ করা ডাটা আপনার সামনে উপস্থাপন করে। তারমানে কুকির মধ্যে আপনার অনেক মূলবান ডাটা সেভ করা থাকে। যারফলে ব্রাউজার আগের তুলনায় খুব দ্রুত কাজ করে।

মূলত প্রধান তিনটি কারণে Cookie ব্যবহার করা হয়‌ –

১। সেশন ম্যানেজমেন্ট – এর মাধ্যমে  লগইন তথ্য, শপিং কার্টের মাধ্যমে কি কি পণ্য ক্রয় করলেন, গেইম খেলার স্কোর সহ এই জাতীয় অনেক কিছুই আপনার কম্পিউটার সার্ভার থেকে ডেটা নিয়ে সংরক্ষন করে রাখে। 

২। পারসনালাইজেশন – ফেসবুক কিংবা ইউটিউবে আপনারা একটু খেয়ার করলে দেখতে পাবেন- যে পোস্ট গুলোতে  আপনি বেশি লাইক, কমেন্ট বা শেয়ার করেন অথবা ইউটিউবে যে ধরনের ভিডিও গুলো বেশি দেখে থাকেন পরবর্তিতে ঐ সম্পর্কিত পোস্টগুলো বা ভিডিওগুলো আপনি এাকধিক দেখতে পান এই পারসনালাইজেশন কুকির মাধ্যমে।

৩। ট্রাকিং – মূলত এই কুকি ব্যবহার করে ব্যবহারকারীর কর্মকান্ড(Activity) ট্র্যাক করা হয় এবং অজান্তেই তার পছন্দনীয় তথ্যের ভিত্তিতে বিভিন্ন ধরণের পণ্যের বিজ্ঞাপন দেখানো হয়।

বিভিন্ন প্রকার কুকি

ওয়েবসাইটগুলো তাদের বিভিন্ন কাজের জন্য ভিন্ন ভিন্ন কুকি ব্যবহার করে থাকে, যার মধ্যে কয়েকটি তুলে ধরা হলো –

Authentication Cookie –

সবচেয়ে গুরত্বপূর্ন কুকি মেথড গুলোর মধ্যে Authentication Cookie অন্যতম। এই কুকিই ব্রাউজারকে বলে দেয় যে ব্যবহারকারী কি লগইন মুডে আছে নাকি নাই বা থাকলেও অন্যকোন একাউন্টে লগইন আছে কিনা। এটি ইউজারের অনেক গুরুত্বপূর্ন ডেটা সংরক্ষন করে রাখতে পারে। যদি কোনভাবে ব্রাউজারের সিকিউরিটি দূর্বল হয় তাহলে এ কুকির মাধ্যমে হ্যাকার গুরুত্বপূর্ন ডেটা নিয়ে নিতে পারে । 

Tracking Cookie –

এই কুকির কাজ ব্যবহারকারীকে নজরদারি করা যেমন ব্যবহারকারী কোন কোন পেইজ ভিজিট করছে অথবা কত সময় ধরে ভিজিট করছে ও কোথায় ক্লিক করছে ইত্যাদি। তবে এটি ব্যবহারকরীর লগইন থাকার উপর নির্ভর করেনা। এটি আইপি এড্রেস (IP Address) ট্রাকিং করার মাধ্যমে ব্যবহারকারীকে সনাক্ত করে।

Session Cookie –

মেমরি কুকি নামে পরিচিত এটি যতক্ষণ ব্রাউজার চালু থাকে ততক্ষন কাজ করে। ব্রাউজার বন্ধ হবার পর এই কুকি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডিলিট হয়ে যায়। তাছাড়া অন্যান্য কুকির মত এর কোন নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকে না।

Persistent Cookie –

এর আরেক নাম Permanent Cookie (স্থায়ী কুকি)।  মূলত এই কুকি ব্যবহারকারীর হার্ড ড্রাইভে সংরক্ষিত অবস্থায় থাকে এবং ব্যবহারকারী এটি মুছে না ফেলা পর্যন্ত সংরক্ষিত অবস্থায় থাকে। এছাড়াও এই কুকির মাধ্যমে ব্যবহারকারীর বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করা হয়ে থাকে। 

কুকির কি কোন সীমাবদ্ধতা নেই?

কুকির সীমাবদ্ধতার কথা আসলে হ্যাকিং শব্দটি আগে চলে আসে। জি ঠিক বলছি হ্যাকাররা থার্ড-পার্টি নামের এক কুকির সাহায্য আমাদের গোপন তথ্যগুলো চুরি করে বিপদে ফেলতে পারে। থার্ড-পার্টি কুকি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে প্রযুক্তির অভিযাত্রিদের সাথে থাকুন অন্য কোন একদিন এই কুকি সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরব আপনাদের মাঝে।
আজ এই পর্যন্তই, এই লেখাটি প্রকাশ করতে আমার অনেক সময় লেগেছে। আশাকরছি আপনার মূল্যবান মন্তব্য পরবর্তী লেখা প্রকাশ করতে অনুপ্রেরণা দিবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*

অন্যান্য প্রকাশনা সমূহ

%d bloggers like this: