ম্যালওয়্যার সম্পর্কে যা জানা জরুরী

ম্যালওয়্যার সম্পর্কে যা জানা প্রয়োজন
ম্যালওয়্যার সম্পর্কে যা জানা প্রয়োজন

ম্যালওয়্যার! বর্তমান সময়ে আসলেই একটি ভয়ের বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। বড় টেক কোম্পানী থেকে ছোট পার্সোনাল কম্পিউটার হতে স্মার্টফোন ইউজার পর্যায়ে ম্যালওয়্যারের ভীতি বিদ্যমান। তবে আসলে এটা ওতটা ভয়ের বিষয় না যতটা ভয় করা হয়। আপনি সচেতন হলেই ম্যালওয়্যার, হ্যাকার ও তাদের ক্ষতিসাধন থেকে বেঁচে থাকতে পারবেন। এই প্রকাশনায় ম্যালওয়্যারের প্রধান কিছু দিক সমুহ নিয়ে আলোচনা করবো। 

প্রথমে আপনাকে জানতে হবে, ম্যালওয়্যার (Malware) কি?

সহজভাষায় ম্যালওয়্যার একটি ক্ষতিকর সফটওয়্যার। এটি যে কোন প্রকারের সফটওয়্যার হতে পারে যা আপনার কম্পিউটার বা স্মার্টফোন বা অন্য কোন ডিভাইসে আপনার অনুমতি ছাড়াই ম্যালওয়্যার তার কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারে। সেই কার্যক্রম হতে পারে আপনার উপর নজরদারি করা, আপনার কম্পিউটারের কর্মক্ষমতা কমিয়ে দেওয়া, অথবা আপনার ডিভাইসে থাকা ডাটা অথবা আপনার হার্ডওয়্যারের ক্ষতি সাধন করা।

আপনার ব্যবহৃত ডিভাইস গুলোর ভেতর একটি প্রসেসর রয়েছে, এবং এটিতে ফাইল ট্রান্সফার করা সম্ভব (অতিরিক্ত কোন ডিভাইস যুক্ত করে বা ওয়াইফাই, ব্লুটুথ বা ইন্টারনেট সহ যে কোন মাধ্যমে) এবং এই ডিভাইসে ম্যালওয়্যার তার কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারে। সেটা আপনার কম্পিউটার, মোবাইল, ট্যাবলেট, স্মার্টওয়াচ, ওয়াইফাই রাউটার, ই-বুক রিডার সহ অনেক কিছুই হতে পারে। আপনার স্মার্ট ডিভাইসের ব্যবহৃত চার্জার দ্বারাও ম্যালওয়্যার আক্রান্ত হতে পারে।

ভাইরাস, ট্রোজান, স্ক্রিপ্ট সহ অনেক প্রকারের ম্যালওয়্যারের নাম আপনি শুনে থাকতে পারেন, যা বিভিন্ন উপায়ে স্মার্ট ডিভাইস সমুহকে আক্রমণ করতে পারে। কিন্তু, ২০২০ সালে এসে ম্যালওয়্যার ছড়ানোর মাধ্যম আর সীমাবদ্ধ নেই। ম্যালওয়্যার ছড়ানোর জন্য অনেক উপায় ব্যবহার করা হলেও এটা থেকে বেঁচে থাকার জন্য নিয়মনীতি প্রায় একই।

এখন প্রশ্ন হলো, ম্যালওয়্যার আপনার কি কি ক্ষতি করতে পারে?

ম্যালওয়্যারের সম্ভাব্য ক্ষতি সমুহ হলোঃ

  • আপনার তথ্য বা ডাটা চুরি করাঃ আপনার পাসওয়ার্ড, ক্রেডিট কার্ডের ইনফরমেশন, গোপনীয় ডকুমেন্টস সহ অনেক তথ্যই ম্যালওয়্যার চুরি করতে পারে। আপনি মনে করতে পারেন, আপনার গোপনীয় কোন ডকুমেন্টস নেই বা ক্রেডিট কার্ডেও তেমন কিছুই নেই। 

    এই বিষয় গুলি আপনার না থাকলেও অনেক বড় বড় রাজনীতিবিদ, বড় কোন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, গোয়েন্দা বিভাগে কাজ করা ব্যক্তি, মিডিয়া জগতে কাজ করা মডেল, শিল্পী সহ অনেকেরই এমন অনেক ডকুমেন্টস থাকে যা চুরি হলে অনেক বড় ক্ষতির মুখে পড়তে হয়। অনেক সময় দেখবেন অনেক শিল্পী বা বিখ্যাত ব্যক্তিবর্গের গোপন ফোন রেকর্ড বা ছবি বা ভিডিও ফাঁস হয়ে থাকে। এইগুলো সবগুলোই তথ্য চুরির ফলাফল।
  • আপনার ডাটা বা তথ্যের ক্ষতি করা অথবা এটি লুকিয়ে রেখে আপনার কাছে অর্থ দাবি করাঃ কিছু ম্যালওয়্যার আছে যা আপনার ডকুমেন্ট সমুহকে এনক্রিপ্টেড করে রাখবে। অর্থাৎ ফাইল গুলো আপনার কম্পিউটারেই থাকবে কিন্তু আপনি তা ওপেন করতে পারবেন না। 

    হ্যাকার এটিকে ওপেন করার উপযোগী বা ডিক্রিপ্ট করার জন্য আপনার কাছে অর্থ দাবি করতে পারে। এই ফাইল গুলো ডিক্রিপ্ট করার জন্য এনক্রিপশন কী (এক ধরণের পাসওয়ার্ড বা পাসকোড) – এর দরকার হয়। অনেক সময় দেখা যায় হ্যাকার অর্থ গ্রহণ করার পরেও ইউজার কে এনক্রিপশন কী প্রদান করে না। 

    ফলে ফাইল এনক্রিপ্টেড অবস্থায়ই থেকে যায়। আপনার ভাগ্য খারাপ হলে এমনও হতে পারে যে, পুরো ফাইল এনক্রিপ্টেড না হয়ে সম্পুর্ণ রুপে ডিলিট করা হয়েছে।
  • জরুরী সেবা প্রদানে বাধা দেওয়াঃ কিছু ম্যালওয়্যার রয়েছে যা ফ্যাক্টরী, পাওয়ার প্লান্ট, ইলেক্ট্রিক গ্রিড, ব্যাংক, সার্ভার স্টেশন, সিকিউরিটি সিস্টেম সহ অন্যান্য জরুরী সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান কে টার্গেট করে। আপনি হলিউড বা বলিউড মুভিতে দেখে থাকবেন, ব্যাংকের কোন কম্পিউটার হ্যাক করে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে, অথবা সিকিউরিটি সিস্টেম হ্যাক করে বড় বড় ক্রাইম করা হচ্ছে। এইগুলো মুভির বাইরে বাস্তব জগতেও বিদ্যমান।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিংঃ ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর জন্য অনেক বেশি কম্পিউটিং পাওয়ার এর প্রয়োজন হয়। কোন একটি স্মার্টফোন বা কম্পিউটার একাই ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং এর জন্য যথেষ্ট শক্তিশালি নয়। কয়েক হাজার ম্যালওয়্যারের আক্রান্ত কম্পিউটারের একটি নেটওয়ার্ক এই কাজের জন্য যথেষ্ট উপযোগী। 

    অনেক মাইনিং ম্যালওয়্যার আপনার কম্পিউটারে লুকিয়ে নিষ্ক্রিয় অবস্থায় থাকে। আপনার কম্পিউটারে যখন কোন কাজ করা হয় না, তখন সেই সকল ম্যালওয়্যার সক্রিয় হয়ে ওঠে। এর ফলে আপনার কম্পিউটারে একটি মাইনিং ম্যালওয়্যার আছে তা আপনি বুঝতেই পারেন না। 

    আবার কিছু ক্রিপ্টোকারেন্সি মাইনিং ম্যালওয়্যার আছে যা সবসময় রানিং থাকে। এর ফলে কম্পিউটার স্লো হয়ে ওঠে। এইভাবে কম্পিউটারে অনেক লোড পড়ে এবং হার্ডওয়্যারের ক্ষতিও হয়। তবে বর্তমান প্রসেসরগুলো ভারি লোড নেওয়ার উপযোগী করে তৈরী করা হয়। তাই হার্ডওয়্যারের ক্ষতিটা তেমন একটা হয়না।
  • আপনার অগচরে সম্মিলিত সার্ভিস এটাক করাঃ একটি ম্যালওয়্যার যার নাম “Botnet”। এই বটনেট ম্যালওয়্যারটি হাজার হাজার কম্পিউটারে ও স্মার্ট ডিভাইসে ছড়িয়ে যায়। তবে ম্যালওয়্যারটি লুকায়িত এবং অকার্যকর অবস্থায় কম্পিউটার বা স্মার্টফোনে থেকে যায়। 

    এইভাবে এই ম্যালওয়্যারটি কয়েক সপ্তাহ, বা কয়েকমাস, বা কয়েক বছর পর্যন্ত থাকতে পারে। এই ম্যালওয়্যার টি নিজে থেক কিছুই করে না। হ্যাকার নিজের প্রয়োজন মোতাবেক নির্দিষ্ট সময়ে এই ম্যালওয়্যার দ্বারা ডিভাইসে একটি কমান্ড পুশ করে, যার দ্বারা কোন ওয়েবসাইটে প্রবেশ করানোর চেষ্টা করা হয়। 

    একসাথে হাজার হাজারটি ইনফেক্টেড ডিভাইস যখন একটি সার্ভারে প্রবেশ করার চেষ্টা করে তখন তখন সেই সার্ভারটি ওভারলোডেড হয়ে যায়। এর ফলে সেই ওয়েবসাইট বা সার্ভার টি তার কাঙ্খিত সেবা দিতে পারে না। এই ক্ষেত্রে বটনেট ম্যালওয়্যার দিয়ে আপনার অগোচরে আপনার কম্পিউটার ব্যবহার করে ক্রাইম করে বসে। 

    অনেক সময় বিষয়টি আপনার অজানা থেকেই যায়। এইরকম এটাক করা হয় ব্যবসায়ীক প্রতিদ্বন্দী বা রাজনৈতীক বিরোধী বা এক দেশের হ্যাকার অন্য দেশের সরকারী ওয়েবসাইট গুলোতে করে থাকে। এর বাস্তব উদাহরণ হলো, আমাদের দেশে পাব্লিক পরীক্ষা সমুহের রেজাল্ট প্রকাশের সময় সেই কাঙ্খিত ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে অনেক বেগ পেতে হয়। কারন তখন হাজার হাজার ডিভাইস থেকে একটি সার্ভারে প্রবেশ করার চেষ্টা করা হয়। যদিও বা এটা কোন ম্যালওয়্যারের কাজ নয়। তবে বটনেট ম্যালওয়্যার ঠিক এভাবেই কাজ করে।

উপরের চিত্রে একটি ম্যালওয়্যারের বাস্তব উদাহরণ দেওয়া আছে। Peyta নামক এই রানসামওয়্যারটি কয়েক বছর আগে ইউরোপের ব্যাপক হারে আক্রমণ করে। এটি কম্পিউটার গুলোতে একটি থার্ডপার্টি সফটওয়্যারের আপডেট হিসেবে কম্পিউটারে প্রবেশ করানো হয়। এটি ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য এনক্রিপ্ট করে অনেক ক্ষতি সাধন করে। এর ক্ষতির স্বীকার হয় আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া সহ অনেক দেশের সুনামধন্য ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, ব্যাংকিং সেবা সহ অনেক ক্ষেত্র।

ছবিতে দেখা যাচ্ছে, হ্যাকার একটি ক্ষুদে বার্তার মাধ্যমে ব্যবহারকারী কে জানাচ্ছে যে তার সম্পুর্ণ তথ্য এনক্রিপ্টেড হয়ে গেছে। এটাকে ডিক্রিপ্ট করার জন্য একটি কি প্রয়োজন। যা পাওয়ার জন্য টর ব্রাউজারের মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে অর্থের বিনিময়ে তাদের কাছ থেকে ডিক্রিপশন কি কিনতে হবে। সেই কি প্রবেশ করানোর পর ডাটা ফেরত পাওয়া যাবে।

অ্যাডওয়্যার ও ব্লটওয়্যার সম্পর্কে কিছু তথ্যঃ

অ্যাডওয়্যার ও ব্লটওয়্যার (Adware & Bloatware) কেও এক ধরণের ম্যালওয়্যার বলা চলে।

অ্যাডওয়্যার আপনাকে আপনার ইচ্ছার বিরুদ্ধে অ্যাড দেখায়। যদি এই বিষয়টা অনেকের কাছেই নগন্য মনে হতে পারে। এর একটি কারণ হচ্ছে, আমরা সাধারণত কোন এ্যাপ বা সার্ভিস বিনামুল্যে গ্রহণ করলে সেই এ্যাপ বা সার্ভিসে এ্যাড দেখে অভ্যস্থ। সেই এ্যাপ বা সার্ভিসের ডেভেলপার অ্যাড এর বিনিময়ে কিছু অর্থ পেয়ে থাকেন।

এই ক্ষেত্রে সেই অ্যাডের সাথে আমাদেরও স্বার্থ জড়িত থাকে। অপরদিকে অ্যাডওয়্যারের বিপরীতে আমরা কোন সুবিধা গ্রহণ করতে পারি না, বিপরীতে এই অ্যাডওয়্যার গুলি আমাদের কম্পিউটার বা স্মার্টফোন বা স্মার্ট ডিভাইসের প্রসেসিং ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। অপরদিকে এই অ্যাডের মাধ্যমে হ্যাকার’রা অর্থ উপার্জন করে থাকে। 

যদিও আপনি একজন মহৎ মানুষ হিসেবে আপনার অব্যবহৃত রিসোর্স ব্যবহার করে অন্য কেও অর্থ উপার্জন করলে আপনার কোন আপত্তি নাও থাকতে পারে। তবে অনেক অ্যাডওয়্যারের সাথে স্পাইওয়্যার, র‍্যানসামওয়্যার বা এই জাতীয় কিছু থাকতে পারে।

ব্লটওয়্যার সেই সকল অতিরিক্ত সফটওয়্যার যা আপনার ইচ্ছার বিরুদ্ধে আপনার কম্পিউটার বা স্মার্টফোন বা স্মার্ট ডিভাইসে পূর্বেই ইন্সটল করা থাকে। উদাহরণ স্বরুপ, আপনি uTorrent ইন্সটল করতে চান। সেই জন্য আপনি এটার সেটাপ ফাইল ডাউনলোড করে চোখ বন্ধ করে নেক্সট নেক্সট ক্লিক করে ইন্সটল করে ফেললেন। তারপর দেখলেন আপনার কম্পিউটারে ওপেরা ব্রাউজার ও এভাস্ট সিকিউরিটি সেন্টার ইন্সটল হয়ে গেছে!

অবশ্যই অনেকের কাছে ওপেরা বা এভাস্ট প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার হতে পারে। তবে আসল বিষয় হলো, এই সফটওয়্যার সমুহ আপনি ইন্সটল করতে চেয়েছিলেন না। এই সফটওয়্যার গুলোর কারনে আপনার কম্পিউটারে অরিতিক্ত কিছু রিসোর্স ব্যবহৃত হবে।

যদি আপনার কম্পিউটারে অতিরিক্ত ফ্রি রিসোর্স পড়ে থাকে তাহলে একবার চিন্তা করুন সেই সকল পুরাতন কম্পিউটারের বিষয়ে। যেগুলোতে সীমিত আকারের প্রসেসিং ক্ষমতা থাকে। তার ভেতর অতিরিক্ত সফটওয়্যার সমুহ কি ঝামেলা তৈরী করতে পারে?

এখন অবশ্য কম্পিউটার বা মোবাইল কেনার পর থেকেই সেই অপারেটিং সিস্টেমে বা সেই এন্ড্রয়েড ডিভাইসের কাস্টম রমে ডজন খানেক ব্লটওয়্যার দেওয়াই থাকে। অনেক অ্যাপস আপনি চাইলেও রিমুভ করতে পারেন না।

যে সকল ভুলের কারনে আমাদের স্মার্ট ডিভাইসে ম্যালওয়্যারের ঝুকি থেকে যায়ঃ

১. সফটওয়্যার আপডেট ও সিস্টেম আপডেট অবহেলা করাঃ প্রতিটা সফটওয়্যার (উইন্ডোজ, ম্যাক ওএস বা লিনাক্স ডিস্ট্রো সমুহ) এ কিছু দুর্বলতা (যা বাগ নামে পরিচিত) থাকে যার কারনে আপনার ডিভাইসে হ্যাকারদের আক্রমণ করা সহজ হয়। সেই সফটওয়্যারের ডেভেলপার গণ সিকিউরিটি আপডেটের মাধ্যমে সেই দুর্বলতা বা ত্রুটি সমুহ ঠিক করার চেষ্টা করেন। আপনার সফটওয়্যার আপডেট বা সিস্টেম আপডেট না করার কারনে আপনার ডিভাইসের ত্রুটি থেকেই যায়।

২. অপরিচিত কারো দেওয়া বা অপরিচিত কোন উৎস হতে পাওয়া ফাইল ওপেন করাঃ আপনাকে হয়ত কোন পরিচিত বা অপরিচিত ব্যক্তি ফাইল দিলো এবং আপনি তা ওপেন করলেন। বা কোথাও থেকে আপনি কোন অফারের লিংক পেয়ে সেটিতে ক্লিক করলেন। এরকমও হতে পারে সেই সকল ফাইল বা লিংক এমন ভাবে তৈরী করা হয়েছে যা আপনার ডিভাইসে কোন ম্যালওয়্যার ইন্সটল করে দিতে পারে।

৩. সন্দেহজনক বা ক্র্যাক সফটওয়্যার ব্যবহার করাঃ এই ক্যাটাগরীতে থাকতে পারে ফ্রি ভিডিও প্লেয়ার, কোনো কমার্শিয়াল সফটওয়্যারের ক্র্যাক ভার্শন, সেই সফটওয়্যার গুলো ডাউনলোড স্পিড বৃদ্ধি করে দাবি করতে পারে, এবং সেই সাথে আপনার সিস্টেমের পারফরমেন্স বৃদ্ধি করবে বলে দাবি করতে পারে বা অন্যান্য সন্দেহপূর্ণ দাবি করতে পারে।

আপনি যখনই ইন্টারনেট থেকে কোন কিছু ফ্রি তে ডাউনলোড করার চেষ্টা করেন তখনই একটা সম্ভাবনা থেকে যায় আপনার কম্পিউটারের ম্যালওয়্যার দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার। এছাড়া আনঅফিসিয়াল সোর্স থেকে উইন্ডোজ আইসএও (ISO) বা লিনাক্সের কোন ডিস্ট্রিবিউশনের আইএসও বা ম্যাকওএস এর ডিএমজি ইমেজ বা কোন কাস্টম রম বা কোন ফার্মওয়্যার ফাইল ডাউনলোড করে ব্যবহার করার কারনে সিস্টেমে ম্যালওয়্যার চলে আসতে পারে।

অনেক সময় সার্ভিস সেন্টারে কম্পিউটারের সফটওয়্যার সার্ভিসের সময় ব্লটওয়্যার / ম্যালওয়্যার ইন্সটল করে দিতে পারে। মনে রাখবেন, পৃথিবীতে কোন কিছুই ফ্রি তে নয়। প্রতিটা জিনিসের একটি মুল্য রয়েছে। সেই মুল্য যেন আপনার প্রাইভেসির বিনিময়ে না হয়।

৪. আপনার স্মার্টফোনের ক্ষেত্রেও একই শর্ত প্রযোজ্য। কোন থার্ডপার্টির ওয়েবসাইটে কোন প্রো এপিকে ফ্রি তে পেতে পারেন। সেই এপিকের সাথে আপনার ফোনে ম্যালওয়্যার বা ব্লোটওয়্যার বা অ্যাডওয়্যার খুব সহজেই চলে আসতে পারে।

ম্যালওয়্যার কারা তৈরী করে এবং এর দ্বারা কারা উপকৃত হচ্ছে?

কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ এবং সাইবার ক্রিমিনালরা ম্যালওয়্যার তৈরী করে থাকে। একসময়ে (ইন্টারনেট আসার আগে) ভাইরাস (VIRUS) ব্যবহার করা হতো কম্পিউটারের সাইন্সের বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য। ভাইরাস তৈরী করা হতো ভয় দেখানোর জন্যে, এটা থেকে অর্থ উপার্জন করার উদ্দেশ্য খুবই কম ছিলো।

বর্তমানে সারা বিশ্বের হ্যাকাররা ম্যালওয়্যার তৈরী করে তাদের হ্যাকিং এর কাজে ব্যবহার করার জন্য। তাদের উদ্দেশ্য থাকে ক্রেডিট কার্ডের তথ্য চুরি করা, অন্যান্য তথ্য চুরি করা, ক্রিপ্টো মাইনিং সহ অনেক কিছুই। অনেক সময় একটি কোম্পানী আরেকটি কোম্পানীর বিরুদ্ধে আক্রমন করার জন্য হ্যাকার নিয়োগ করে। অনেক সময় একটি দেশের সরকার আরেকটি দেশের সরকারের বিরুদ্ধে আক্রমন করার জন্য হ্যাকারদের সহায়তা গ্রহণ করে থাকে।

কাদের ম্যালওয়্যারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি?

যারা টেকনোলজি সম্পর্কে জানেন, তাদের ব্রাউজার সম্পর্কে ধারনা রয়েছে, ইন্টারনেট ও কম্পিউটার সহ অন্যান্য স্মার্ট ডিভাইস ব্যবহারে সচেতন, সর্বোপরি টাস্ক ম্যানেজার ওপেন করে বিভিন্ন প্রসেস বা সন্দেহজনক প্রসেস মনিটর করতে পারেন তাদের ম্যালওয়্যার আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

অপরদিকে অল্প বয়স্ক ও বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তি এবং যারা টেকনোলজি সম্পর্কে তুলনামূলক কম জানেন এবং এই সম্পর্কে কম সচেতন তাদের ম্যালওয়্যারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা খুবই বেশি। পরবর্তীতে আপনার সন্তান বা পিতা মাতার কম্পিউটার সামনে পেলে অবশ্যই কোন প্রকারের সন্দেহজনক প্রসেস চলছে কি না চেক করে নিতে ভুলবেন না।

কিভাবে আপনি নিজেকে এবং নিজের কাছের মানুষদের ম্যালওয়্যার থেকে রক্ষা করবেন?

অটো-আপডেট অন রেখে। সিস্টেম কে নিজের সুরক্ষা নিজে করতে দিন। এর জন্য অটো-আপডেট অন রাখা অতি জরুরী। অটো-আপডেটের মাধ্যমে আপনার সিস্টেমের জন্য প্রয়োজনীয় সিকিউরিটি প্যাচ প্রদান করা হয়।

সিকিউরিটি সফটওয়্যার ব্যবহার করে। উইন্ডোজের ভিস্তা (Windows Vista) ভার্শন থেকেই উইন্ডোজে নিজস্ব একটি সিকিউরিটি সফটওয়্যার Windows Defender ব্যবহার করা হয়েছে। শুরুতে সেটি যথেষ্ট শক্তিশালি না হলেও বর্তমানে সর্বশেষ রিলিজ Windows 10 (19H2) পর্যন্ত উইন্ডোজ ডিফেন্ডার একটি যথেষ্ট শক্তিশালি সিকিউরিটি সফটওয়্যার।

এছাড়াও আপনি Eset, Norton বা Kaspersky ব্যবহার করতে পারেন। এইগুলো আপনার কম্পিউটারে অতিরিক্ত কিছু রিসোর্স ব্যবহার করে হলেও আপনার কম্পিউটার কে সুরক্ষিত রাখবে। অন্যদিকে লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশন সমুহে ও ম্যাক ওএস এ সাধারণ ডেস্কটপ ব্যবহারের জন্য অতিরিক্ত সিকিউরিটি সফটওয়্যার খুব একটা প্রয়োজন পড়ে না।

সিকিউরিটি এবং ম্যালওয়্যার সম্পর্কে নিজে শেখা এবং অন্যকে সচেতন করা। অনলাইন সিকিউরিটি এবং বিভিন্ন ফিশিং (Phishing) সম্পর্কে নিজে সচেতন থাকতে হবে এবং নিজের কাছে মানুষদেরকে শেখাতে হবে। বিশেষ করে যেসকল বয়ষ্ক ব্যক্তি যারা নতুন করে নিজে থেকে কোন কিছু শেখার সুযোগ নেই, তাদের টুকটাক সিকিউরিটির বিষয়ে সচেতন করা উচিত।

অপরিচিত কারো দেওয়া লিংক ওপেন করা থেকে বিরত থাকতে হবে (অনেক সময় পরিচিত মানুষ নিজের অজান্তেই ক্ষতির কারণ হয়ে দাড়ায়)। আনএনক্রিপ্টেড কানেকশনে কখোনই ক্রেডিট কার্ড বা ডেবিট কার্ডের ইনফরমেশন দেওয়া যাবে না। আপনি আপনার পাসওয়্যার্ড কোথায় টাইপ করছেন তা টাইপ করার পূর্বে অবশ্যই লক্ষ করতে হবে।

অনেক সময় হ্যাকার’রা পরিচিত কিছু ওয়েবসাইট (ফেসবুক বা জিমেইল বা টুইটার ইত্যাদি) এর মত ইউআই (UI) তৈরী করে পাসওয়ার্ড হাতিয়ে নেওয়ার জন্য। সে ক্ষেত্রে পাসওয়্যার্ড দেওয়ার আগে ব্রাউজারের ইউআরএল চেক করে নিবেন, আপনি আসলে কোথায় পাসওয়ার্ড টি দিচ্ছেন।

ক্র্যাক ও আনঅফিসিয়াল সোর্সের সফটওয়্যার ব্যবহার হতে বিরত থাকা। বিভিন্ন টরেন্ট থেকে ক্র্যাক সফটওয়্যার ডাউনলোড করে ব্যবহার করা বা যে কোন জায়গা থেকে পাওয়া সফটওয়্যার ইন্সটল করে ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

অ্যাডবি ফটোশপের ক্র্যাক ভার্শন ব্যবহার করা থেকে অ্যাডবি ক্রিয়েটিভ ক্লাউড ব্যবহার করা ভালো। কারন ক্র্যাক সফটওয়্যার আপনার সিস্টেমের সাথে কি কি করতে পারে তা আমারা কেউই জানি না।

যে কোন ওয়েবসাইট থেকে বা যে কোন জায়গা থেকে ডিভিডি কিনে বা উইন্ডোজ এর আইসএও বা লিনাক্সে ডিস্ট্রোর আইএসও বা ম্যাক ওএসএর ডিএমজি ফাইল ডাউনলোড না করে প্রতিটির নিজস্ব অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ও সার্ভার থেকে ডাউনলোড করা উচিত। কারন আমরা কেও জানিনা আনঅথেনটিক সেই আইএসও বা ডিএমজি ফাইল প্রোভাইডার তার ভেতর কি কি দিয়ে রেখেছে।

সর্বোপরি, আমাদের সবারই উচিত সতর্ক থাকা। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন কথা হলো, আপনি যদি ভেবে থাকেন আপনার সেরকম কোন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য নেই যার কারনে আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে! সেটা হতে পারে আপনার জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল।

কারন কে কখন, কোন মুহুর্তে বিপদে পড়বেন সেটা কেও বলতে পারবে না। মনে রাখবেন, সবচেয়ে বড় ম্যালওয়্যার বা ভাইরাস হচ্ছে কম্পিউটারের স্ক্রিনের সামনে বসে থাকা ব্যক্তি বা আপনি। আপনি যদি সতর্ক না হোন তাহলে পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালি সিকিউরিটি সিস্টেম আপনার কম্পিউটার বা স্মার্ট ডিভাইস কে রক্ষা করতে পারবে না।

এবং মজার বিষয় হচ্ছে বিপদে পড়ার আগমুহুর্ত পর্যন্ত আপনি গর্ব করে বলতে পারবেন “আমি জন্মের পর থেকে সিকিউরিটি সফটওয়্যার ছাড়াই কম্পিউটার ব্যবহার করে আসছি, I don’t care about security!”


কুইজের মাধ্যমে চলুন দেখে নেওয়া যাক ম্যালওয়্যার সম্পর্কে আপনি কতটুকু সচেতন!

#1. Ransamware এর কাজ কি?

পরবর্তী কুইজ

#2. Spyware এর কাজ কি?

পরবর্তী কুইজ

#3. Adware এর মূল কাজ কি?

পরবর্তী কুইজ

#4. কোন সফটওয়্যার ইন্সটল করার জন্য আপনি কি করেন?

পরবর্তী কুইজ

#5. আপনি যে ওপারেটিং সিস্টেম চালাচ্ছেন তা কোথা থেকে ডাউনলোড করা?

পরবর্তী কুইজ

#6. আপনার খুব কাছের ছোটভাই আপনার সাথে একটি সফটওয়্যার অনলাইনের কোনো মাধ্যমে শেয়ার করলো, আপনি এখন কি করবেন?

পরবর্তী কুইজ

#7. আপনার ছোট ভাই / বাবা-মা কে টরেন্ট ওয়েবসাইট থেকে কোন সফটওয়্যার ডাউনলোড করতে দেখলে কি করবেন?

পরবর্তী কুইজ

#8. কোন এক দরদি বড়ভাই সোস্যাল মিডিয়ায় একটি অপারেটিং সিস্টেম কে কাস্টমাইজ করে একটি ISO আপলোড করলেন, এখন আপনি কি করবেন?

পরবর্তী কুইজ

#9. আপনার কম্পিউটারে সফটওয়্যার জনিত সমস্যা দেখা দিলে কি করেন?

পরবর্তী কুইজ

#10. আপনার কম্পিউটার / মোবাইলে আপডেট আসার কতদিন পর আপনি তা আপডেট করেন?

কুইজ শেষ করুন

কুইজের ফলাফল হচ্ছে -

Quiz Pass Result A আপনি তো ভাই গিক! আপনার এই সচেতনতা বজায় থাকুক এটাই আশা করি 🙂

Quiz Failed

স্মার্ট ডিভাইস ব্যবহারে আপনার যথেষ্ট সচেতন হওয়া উচিত!
Share your score!
Tweet your score!

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

You May Also Like
best secure messaging apps private messenger
Read More

প্রাইভেট মেসেজিং : নিরাপদ হোক অনলাইনে কথাবার্তা

আপনি প্রতিদিন হাজার হাজার মেসেজ বিভিন্ন জনের কাছে পাঠাচ্ছেন, আপনাকেও অনেকে মেসেজ পাঠাচ্ছে। কিন্তু আপনার কি ধারণা আছে…
hacking vs hacker Projuktir Avijatri Projuktir Avijatri types of hacking what is hacking definition হ্যাকিং শিখতে হলে শিখতে চাই হ্যাকিং কি কাকে বলে হ্যাকিং শিখুন প্রতিরোধের উপায় সাইবার ক্রাইম কি কিভাবে হ্যাকার হব প্রযুক্তির অভিযাত্রি
Read More

ঘুরে আসি হ্যাকিং এর জগতে

হ্যাকিং শুনলেই মনের মধ্যে এক ধরণের উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়। সেখান থেকেই মূলত এই লেখাটির অনুপ্রেরণা; তাই আজকে খুব…
প্রযুক্তির অভিযাত্রী ডার্ক ওয়েব পরিচিতি ডিপ ওয়েব কি ডার্ক ওয়েবে প্রবেশ সার্চ ইঞ্জিন কেন খুজে পায়না কেন ডার্কনেট ঝুকিপুর্ন Dark Web/Deep Web কি এবং কেন কিভাবে ডার্ক ওয়েবে প্রবেশ করবেন deep web stories documentary Projuktir AvijatriProjuktir Avijatri darkweb deepweb
Read More

ডার্ক ওয়েব – ইন্টারনেটের এক বিচিত্র জগত

ইন্টারনেট দুনিয়ায় Google’র মত সার্চ ইঞ্জিনের বাইরে যে বিস্তার জগত আছে আমরা বেশীর ভাগই সেই বিষয়টি সম্পর্কে অবগত না।…